অল্পকথা ডট কম

স্বর্নালী দিনের স্পর্শ

সাথে থাকুন

Download

গান শুনতে এখানে ক্লিক »করুন !

Member Login

Lost your password?

Not a member yet? Sign Up!



বিপ্রদাশ বড়ুয়া

লেখকঃ বিপ্রদাশ বড়ুয়া

লেখক সম্পর্কেঃ বিপ্রদাশ বড়ুয়ার জন্ম ২ আশ্বিন ১৮৭২ শতাব্দ (২০ সেপ্টেম্বর ১৯৪০) চট্টগ্রামে। পড়াশুনো চট্টগ্রাম, রাঙামাটি ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে। কথাসাহিত্যিক, নিসর্গপ্রেমী, ছোট ও বড় সবার জন্য লিখেছেন ১২০-এর অধিক বই। অসচরাচর বিষয় নিয়ে লেখা গল্পগুলো প্রবাদতুল্য প্রসিদ্ধি পেয়েছে। বাংলার বিভিন্ন অঞ্চলের মানুষের জীবনাচরণ, ধর্মাচরণ এবং তাদের ওপর নির্যাতনের প্রকৃতি ও মাত্রা কত যে ভিন্ন হতে পারে, তা প্রকাশ করেছেন ৪০টি গল্প ও উপন্যাস গ্রন্থে। কিশোর-শিশুদের জন্য লেখা ৪০-এর অধিক গল্প-উপন্যাস ভিন্ন মাত্রা যোজন করে। শিশুদের জন্য বাংলার লোকসাহিত্য থেকে বিশ্বসাহিত্য সর্বত্র গতিশীল বিপ্রদাশ বড়ুয়া। বাংলার লাঞ্ছিত নিসর্গ নিয়ে প্রকাশিত বইয়ের সংখ্যা ২০টি। এসব লেখা ছাপা হয়েছে বিভিন্ন দৈনিক,ও মাসিক এ । 'সমুদ্রচর ও বিদ্রোহীরা' উপন্যাসে উঠে এসেছে ১৯৮৫ ও ১৯৯১ সালের ঝড়-জলোচ্ছ্বাস ও বঙ্গোপসাগর। 'শ্রামণ গৌতম' উপন্যাসে উঠে এসেছে চট্টগ্রাম ও পার্বত্য চট্টগ্রামের বৌদ্ধ জনজীবন ও অন্তর্জীবন। 'অশ্রু ও আগুনের নদী' ২০০১ সালের নির্যাতিত-নিপীড়িত মানুষের হাহাকার। 'ইয়াসমিন' উপন্যাসও অত্যাচারের অন্য এক মাত্রাস্পর্শী। বাংলা সাহিত্যে এমন পটভূমির বহুমাত্রিক উপন্যাস সহজলভ্য নয়। মুক্তিযুদ্ধ-বিষয়ক গল্প লিখেছেন প্রায় শতাধিক। প্রথম উপন্যাস "অচেনা" (১৯৭৫), প্রথম গ্লপবই "সাদা কফিন"(১৯৮৪) বড় ও ছোটদের উপন্যাস ১৬টি, গল্পবই ৪৪টি। ১৯৯২ সালে বাংলা একাডেমী, ১৪১১ সনে বাংলাদেশ শিশু একাডেমী সাহিত্য পুরস্কার ও তিনবার অগ্রণী ব্যাংক শিশু সাহিত্য পুরস্কারসহ বহু পুরস্কার পেয়েছেন।

লেখকের ইউআরএলঃ
অবস্থান: বাংলাদেশ
প্রোফাইলঃ ১৬৮ views হয়েছে ।

বিপ্রদাশ বড়ুয়া, মন্তব্য সংখ্যাঃ ০

বিপ্রদাশ বড়ুয়া, পোষ্ট সংখ্যাঃ ১৪

যুক্ত হয়েছেনঃ সেপ্টেম্বর ১০, ২০১৩, মঙ্গলবার,

বিপ্রদাশ বড়ুয়া 'র পছন্দের পোষ্টঃ
  • "এখনো কোন পছন্দের পোষ্ট যুক্ত করেন নাই ।"

  • মৃত্যুর ভাস্কর্য

    সংযুক্তির তারিখঃ ০২ এপ্রিল ২০১৬ লিখেছেনঃ বিপ্রদাশ বড়ুয়া

    রাজী বলল, পঙ্গু হওয়ার পর তাজুল স্বপ্ন দেখত সে পূর্ব জার্মানির হাসপাতালে শুয়ে আছে। সেবিকা মারিয়া রেমার্ক তার পাশে দাঁড়িয়ে সান্ত্বনা দিচ্ছে, হাতের ব্যান্ডেজ ঠিক করে দিচ্ছে, ওষুধ খাইয়ে দিচ্ছে আর বুকভরা ভালোবাসা দিয়ে তাকে আলিঙ্গনে বেঁধে রেখেছে প্রচণ্ড শীতের রাতে। ভালো হয়ে উঠেছে সে, এক পা সুস্থ ও সবল, শুধু বাঁ হাতখানা নেই। তাতে […] বিস্তারিত

    ট্যাগসমুহঃ

    মন্তব্য (নেই )

    অস্তিত্ব

    সংযুক্তির তারিখঃ ২৪ মার্চ ২০১৬ লিখেছেনঃ বিপ্রদাশ বড়ুয়া

    তবে তোমার ভালোবাসা তুমি ফিরিয়ে নেবে বলছ? যে ভালোবাসা তুমি এত দিন উৎসারিত করেছ, যে সম্পদ তুমি উন্মুক্ত করেছ…তোমার চুম্বন…আদর ও স্বপ্ন দেখিয়েছ সবই একে একে তুলে নাও। পারবে? চাও? তাহলে তুলে নাও, ফিরিয়ে নাও।…নিতে চাও? ছিন্নভিন্ন আমি পরোয়া করে বললাম। পারবে সেই বোশেখের শিলাবৃষ্টির ভয়স্নিগ্ধ ছাত্র-শিক্ষক মিলনায়তনের বৈকালিক স্মৃতি-চুম্বন মুছে নিতে? ভয় ও ভালোবাসার […] বিস্তারিত

    ট্যাগসমুহঃ

    মন্তব্য (নেই )

    মৃত মানুষের ডায়েরি থেকে

    সংযুক্তির তারিখঃ ১৮ অক্টোবর ২০১৫ লিখেছেনঃ বিপ্রদাশ বড়ুয়া

    তকাল হঠাৎ ক-এর মনে হল, তার কিছুই করার নেই। একটি দুষ্টগ্রহ। সেটি ক অর্থাৎ আমাকে চারদিক থেকে ঘিরে নৃত্য শুরু করে। ঘণ্টা কয়েক আগ থেকে সেটি আমার পিছু নেয় একেবারে তেঁদরের মতো। হায়া শরম বলতে কিচ্ছু নেই। অনেকক্ষণ ধরে তাকে পাত্তা দিতে চাই নি… চাই নি বলেই যে সে ফিরে যাবে সে বান্দাও সে বুঝি […] বিস্তারিত

    ট্যাগসমুহঃ

    মন্তব্য (নেই )

    অতল জলের আয়না

    সংযুক্তির তারিখঃ ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৫ লিখেছেনঃ বিপ্রদাশ বড়ুয়া

    প্রথম অধ্যায় স্বপ্নের মধ্যেই রোহণের যৌবন উন্মেষের দিনগুলো কেটে গেল। নিজেকে চেনার আগেই এক নারীর মনো-দৈহিক কুহেলি টানাপোড়েন দেখল। কিছু বুঝে ওঠার আগেই আচ্ছন্ন হয়ে পড়ল বাস্তবতার রহস্য-রোমাঞ্চকর সেই জগতে। নিজের সেই জীবনকে সে বলল – আমি নই, সেই নারী নয়, আমরা কেউ কাউকে প্রকাশ্যে ও অন্তরে দোষ দিতে পারি না। ওর দোষ কোথায়? আমারওবা […] বিস্তারিত

    ট্যাগসমুহঃ

    মন্তব্য (নেই )

    দেবদাস

    সংযুক্তির তারিখঃ ২৬ মার্চ ২০১৫ লিখেছেনঃ বিপ্রদাশ বড়ুয়া

    ফেব্রুয়ারি মাসে দেবদাস রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় ফিরে এলেন। দেশ স্বাধীন, কিন্তু দেবদাস নির্বাক। বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকতার কাজে যোগ দিলেন না। সহকর্মীরা বলছেন কাজে যোগ দিতে। বাংলার অধ্যাপক বললেন, ‘আগে কাজে যোগ দিন, তারপর অন্য কথা।’ দেবদাস উল্টো প্রশ্ন করে বসলেন, ‘কী হবে কাজে যোগ দিয়ে!’ না, এটি উত্তর নয়। নিজের সঙ্গে নিজের সওয়াল-জবাব। আপন মনে কথা […] বিস্তারিত

    ট্যাগসমুহঃ

    মন্তব্য (নেই )

    শীতের শব্দগন্ধচিত্রমালা

    সংযুক্তির তারিখঃ ১৩ মার্চ ২০১৫ লিখেছেনঃ বিপ্রদাশ বড়ুয়া

    কুয়াশার বাড়ির ভেতর এভাবে নিজেকে দিনরাতের সিংহ ভাগ সময় নিয়ে ডুবে থাকতে কবে দেখেছি আমি মনে করতে পারি না। ২৬ অক্টোবর ২০১৪ থেকে বাঘের মতো পিছু নিয়েছে কুয়াশার মায়াবী নাগপাশ, শীতের গল্প ও কবিতা। একবার ভাবি, তাকে ভালোবাসলে আর ছাড়াছাড়ি নেই। তাই কুয়াশা তরুণীকে ছাড়িনি। সেই কবেকার বালক বয়স থেকে দেখছি আমাদের উঠোনে খুব ভোরে […] বিস্তারিত

    ট্যাগসমুহঃ

    মন্তব্য (নেই )

    চিতাবাঘ চোখের মেয়েটি ও আমি

    সংযুক্তির তারিখঃ ২২ ফেব্রুয়ারী ২০১৪ লিখেছেনঃ বিপ্রদাশ বড়ুয়া

    অন্ধকারে তোমার জ্বলজ্বলে চোখে চিতাবাঘটা দেখে সে ভয়ে চাপা চিৎকার করে উঠল। চিতাবাঘ মানে লামচিতা বা ক্লাউডেড লেপার্ড। সঙ্গী মানবীর চোখে অন্ধকারে এ রকম বাঘ দেখলে কেউ কি স্থির থাকতে পারে। সে তোমার চোখে লামচিতার জ্বলন্ত চোখ দেখতে পেল। তুমি বললে, কি হলো? চিৎকার করছ কেন? আমি কি বাঘ? সে প্রায় তোতলাতে তোতলাতে বলে উঠল, […] বিস্তারিত

    ট্যাগসমুহঃ

    মন্তব্য (নেই )

    নতুন পাখি চিতাবক

    সংযুক্তির তারিখঃ ১১ ফেব্রুয়ারী ২০১৪ লিখেছেনঃ বিপ্রদাশ বড়ুয়া

    ভালো একটি দিন। ২০১২ সালের ১৫ অক্টোবর সকাল ৯টার দিকে। আমার গ্রাম চট্টগ্রামের ইছামতীতে। আমাদের পানা ও কলমি দামে ভরা বড় একটি পুকুর আছে। ইছামতী ও কর্ণফুলীর ভাঙনে উদ্বাস্তু হয়ে আমার কাকা অধ্যক্ষ সুশান্ত বড়ুয়া বাড়ি করেছেন এই পুকুরের পশ্চিম পাড়ে। কাকিমা শিপ্রা বড়ুয়া রান্না করছেন। পাকা ঘরের উত্তর দিকে রান্নাঘর। ওখান থেকে কাকিমা শিরীষ, […] বিস্তারিত

    ট্যাগসমুহঃ

    মন্তব্য (নেই )

    হাতির ছানা বনশ্রী

    সংযুক্তির তারিখঃ ১১ ফেব্রুয়ারী ২০১৪ লিখেছেনঃ বিপ্রদাশ বড়ুয়া

    একদল হাতি নদী পার হচ্ছিল। দলে মোট ১২টি হাতি। তার মধ্যে দুধের বাচ্চা তিনটি। ওদের বয়স তিন থেকে ১৩ মাস। ছোটটা মায়ের দুধ ছাড়া কিছুই খায় না। কচি ঘাস বা পাতা দু’এক কামড় দেয়, চিবোয়। কখনো গেলে, কখনো ফেলে দেয়। মায়ের থেকে দেখে দেখে শিখেছে। মায়ের দুধেই পেট ভরে যায়। ভারি মজা দুধ খেতে। বড় […] বিস্তারিত

    ট্যাগসমুহঃ

    মন্তব্য (নেই )

    বসন্তের অন্তর্বাস ও গ্রীষ্ম সুন্দর

    সংযুক্তির তারিখঃ ১১ ফেব্রুয়ারী ২০১৪ লিখেছেনঃ বিপ্রদাশ বড়ুয়া

    ‘তোমার বাস কোথা যে পথিক ওগো, দেশে কি বিদেশে।/তুমি হৃদয় পূর্ণ করা ওগো, তুমিই সর্বনেশে।’ হৃদয় পূর্ণ করা ও সর্বনেশে বসন্ত কোথা থেকে আসে? বসন্তের পর্যায়ক্রমিক নাম পুষ্পসময়, সুরভি, মধু, মাধব, ফল্গু, ঋতুরাজ, পুষ্পমাস, পিকানন্দ, কান্ত ও কামসখ। তাহলে সে কি বহরূপী, বহুবল্লভ! ‘গাছ গাছে ফুল, জলে পদ্ম, কামিনীরা কামাতুরা, বাতাস সুগন্ধি, সন্ধ্যাকাল সুখপ্রদ, দিনগুলো […] বিস্তারিত

    ট্যাগসমুহঃ

    মন্তব্য (নেই )

    ই-মেইলের মাধ্যমে নতুন পোষ্ট-এর জন্য

    আপনার ই-মেইল লিখুন

    ,

    অক্টোবর ১৯, ২০১৭,বৃহস্পতিবার

    Custom Search
    আপনার বিজ্ঞাপন !
    setubondhon

    বিজ্ঞাপনের জন্য