অল্পকথা ডট কম

স্বর্নালী দিনের স্পর্শ

সাথে থাকুন

Download

গান শুনতে এখানে ক্লিক »করুন !

Member Login

Lost your password?

Not a member yet? Sign Up!

লজ্জা

লিখেছেনঃ

আমার খুব রাগ হয় বাবার ওপর। বাবার পরনে এক অদ্ভুত পোশাক। যেন জোব্বা একটা, নীল রঙের। আগের চেয়ে স্বাস্থ্য অনেক ভালো হয়েছে। মাথায়ও কখনো এমন ঘন চুল ছিল না। মুখেও বেশ ভারিক্কি চালের হাসি। এই সব কিছু মিলিয়ে বাবাকে আমি চিনতে পারি না। তাই দেখে বাবার হাসি যেন বেড়ে যায়—কী রে, তুই চিনতে পারছিস না […] বিস্তারিত

ট্যাগ সমুহঃ

লজ্জা তে মন্তব্য বন্ধ

নন্দিনী পাখিরা

লিখেছেনঃ

আমি পাগল হয়ে যাব। আমি তো দেখতে পাচ্ছি কারা কী করেছে! সুবল ভট্ট এমন করে আজকাল আমার দিকে তাকাচ্ছে। ওই ভট্টই আমাকে কালাচাঁদের ব্যাপারে বলে। কী বলে? ভোরবেলা এল। তখন আলো ফোটেনি। প্রসাদ ডাক্তার আর আপনি পৌঁছনোর অনেক আগে। ভট্ট বলে গেল, যা সরমা দেখ গে যা, ভুড়িপুকুরে কালাচাঁদ ভাসছে। কেটে-মেরে ফেলে দিয়েছে। সারারাত রাস্তার […] বিস্তারিত

মন্তব্য (১)

নন্দিনী পাখিরা

লিখেছেনঃ

সব সময় মানুষের ঘের; সব সময় শুধুই মানুষ; সর্বদা মানুষ-মানুষ, ভালো লাগে? সবই মানুষের, আর কারও নয়? এ কথা ভেবে আপন মনে, কেমন আনমনা হেসে ওঠে নন্দিনী পাখিরা। সব সময় মানুষ; কাছেপিঠে সর্বক্ষণ মানুষের গরম নিশ্বাস, কথার গলগলানি, চোটপাট, গায়ের গন্ধ; হাসি, ছ্যাবলামি, গজর-গজর কপটতা, নানান খেল, দাঁতের ঘষায় হিংসার বিদ্যুৎ, অবৈধ ব্যাপারে সিনেমা, সেক্স-সিটি […] বিস্তারিত

ট্যাগ সমুহঃ

নন্দিনী পাখিরা তে মন্তব্য বন্ধ

পারুলকন্যা

লিখেছেনঃ

কী খবর কবি সাহেব, কেমন রয়েছেন? সোফা-কাম বেডটিকে বেড করে দিয়ে গেছে একজন বয়। কেবিনেটে রাখা বালিশ বের করে দিয়েছে। দুপুরের পর থেকে শুয়ে আছে কবি। নকশিকাঁথা বের করে পা থেকে গলা পর্যন্ত ঢেকে রেখেছে। ঘুমাবার চেষ্টা করেছিল, হয়নি। ভেতরে শুধুই এক অস্থিরতা। এই হয়তো জ্ঞান ফিরলো মেয়েটির। জীবন-মৃত্যুর মাঝখান থেকে জীবনের দিকে ফিরে এলো। […] বিস্তারিত

ট্যাগ সমুহঃ

পারুলকন্যা তে মন্তব্য বন্ধ

বুবনা(শেষাংষ)

লিখেছেনঃ

আলো জ্বালে। বাথরুমের আলোর সুইচ অন করে। নেই। দরজা খুলতে চেষ্টা করে, পারে না। বাইরে থেকে বন্ধ। তৌকির দরজা বাইরে থেকে বন্ধ করে কোথায় গেল? ঘুমটা একেবারে ছুটে যায়। টেলিভিশন চালাতে চেষ্টা করে, কিন্তু রিমোট কন্ট্রোল পাচ্ছে না। এ কোথায় এসেছে। লুবনা যখন স্কুলজীবনের বান্ধবী সাব্রিনার সঙ্গে এই আমেরিকান পাত্রের প্রশংসা করছিল- দারুণ হ্যান্ডসাম, অমিতাভ […] বিস্তারিত

ট্যাগ সমুহঃ

বুবনা(শেষাংষ) তে মন্তব্য বন্ধ

নিঃসঙ্গ দুপুর(শেষাংশ)

লিখেছেনঃ

মাকে গাছের নিচে এগোতে দেখলে বাবা সোজা হয়ে দাঁড়ায়। বাবার হাত থেকে পানির বোতল পড়ে যায়। আমাদের বাবা ভ্যাবলাকান্ত হয়ে যায়। বাবার জন্য আমার খুব মায়া হয়। একবার ভাবি যে মাকে বলি, আম্মা, বাড়ি চলেন। কিন্তু বলতে পারি না। মা ততক্ষণে আমার হাত ছেড়ে দিয়ে বাজানের সামনে গিয়ে দাঁড়িয়েছে। গিয়েই বলে, শোন মেয়ে হয়েছে বলেই […] বিস্তারিত

ট্যাগ সমুহঃ

নিঃসঙ্গ দুপুর(শেষাংশ) তে মন্তব্য বন্ধ

বুবনা

লিখেছেনঃ

বুবনার ভক্তরা, বলতে গেলে প্রায় সবাই বলল, ছি! পৃথিবীতে পুরুষ মানুষের এতই অভাব- বুবনা আর পুরুষ খুঁজে পেল না! দু’একজন বলল, মনে হয় মেয়েটার মাথা খারাপ হয়ে গেছে। দু’একজন বলল, তাবিজ-কবচও করতে পারে। ব্ল্যাক ম্যাজিক তো আর মিথ্যে কিছু নয়। চেহারা বোকাটে ধরনের হলেও মানুষটা ভারি ধুরন্ধর। এমন একটা মেয়েকে বাগাতে পারলে আর চাই কী! […] বিস্তারিত

ট্যাগ সমুহঃ

বুবনা তে মন্তব্য বন্ধ

নিঃসঙ্গ দুপুর

লিখেছেনঃ

ভোররাতে ঘুম ভেঙে যায় রাশিদুনের। জানালার কাঠের পাল্লার ফুটোফাটা দিয়ে দিনের হালকা আলো ঢুকছে। রাশিদুনের মনে হয় বেশ লাগছে দেখতে। কতকাল আগের এই পুরনো বাড়ির কাঠের পাল্লাকে আজ ছবির মতো লাগবে কেন? কতদিনই তো দেখেছে রোদ উঠলে এমন দিনের আলো ঘরে ঢোকে। তখন তো এমন লাগেনি। আজ কি তাহলে কোনো খুশির খবর আছে? আনন্দে রাশিদুনের […] বিস্তারিত

ট্যাগ সমুহঃ

নিঃসঙ্গ দুপুর তে মন্তব্য বন্ধ

আমার কিছু দেনা ছিল

লিখেছেনঃ

পৌঁছে মনে হয় তাড়াতাড়ি চলে এসেছি। এখন ফুটপাথের ওপর দাঁড়িয়ে রাশাদের বাড়ির এক অংশ দেখতে পাচ্ছি। যেন দুধ-সাদা রাজহাঁসের এক অংশ, উড়াল দিয়ে যেটুকু উঠেছে সেটুকুই আমার চোখের আওতায়। এ এলাকাটা অদ্ভুত। না আবাসিক, না বাণিজ্যিক। অবশ্য ঢাকা শহরের কোথাও এখন আর নির্দিষ্ট এলাকা নেই। আবাসিক বলে চিহ্নিত এলাকার পেটের ভেতর ঢুকে যাচ্ছে লেদ মেশিনের […] বিস্তারিত

ট্যাগ সমুহঃ

আমার কিছু দেনা ছিল তে মন্তব্য বন্ধ

অতল জলের আয়না

লিখেছেনঃ

প্রথম অধ্যায় স্বপ্নের মধ্যেই রোহণের যৌবন উন্মেষের দিনগুলো কেটে গেল। নিজেকে চেনার আগেই এক নারীর মনো-দৈহিক কুহেলি টানাপোড়েন দেখল। কিছু বুঝে ওঠার আগেই আচ্ছন্ন হয়ে পড়ল বাস্তবতার রহস্য-রোমাঞ্চকর সেই জগতে। নিজের সেই জীবনকে সে বলল – আমি নই, সেই নারী নয়, আমরা কেউ কাউকে প্রকাশ্যে ও অন্তরে দোষ দিতে পারি না। ওর দোষ কোথায়? আমারওবা […] বিস্তারিত

ট্যাগ সমুহঃ

অতল জলের আয়না তে মন্তব্য বন্ধ

ই-মেইলের মাধ্যমে নতুন পোষ্ট-এর জন্য

আপনার ই-মেইল লিখুন

,

জুন ২৩, ২০১৭,শুক্রবার

Custom Search
আপনার বিজ্ঞাপন !

বাংলা সংবাদপত্র