অল্পকথা ডট কম

স্বর্নালী দিনের স্পর্শ

সাথে থাকুন

Download

গান শুনতে এখানে ক্লিক »করুন !

Member Login

Lost your password?

Not a member yet? Sign Up!

নীরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তী

লেখকঃ নীরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তী

লেখক সম্পর্কেঃ নীরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তী (১৯ অক্টোবর ১৯২৪-) একজন ভারতীয় বাঙ্গালি কবি। বিংশ শতাব্দীর দ্বিতীয়ার্ধে আবির্ভুত আধুনিক বাংলা কবিদের অন্যতম। উলঙ্গ রাজা তাঁর অন্যতম বিখ্যাত কাব্যগ্রন্হ। এই কাব্যগ্রন্হ লেখার জন্য তিনি ১৯৭৪ খ্রিস্টাব্দে সাহিত্য অকাদেমি পুরস্কার লাভ করেন। কবি পশ্চিমবঙ্গে বাংলা আকাদেমির সাথে দীর্ঘকাল যুক্ত। শৈশব ও কৈশোর তাঁর শৈশবের পুরোটাই কেটেছে পূর্ববঙ্গে যা বর্তমান [ [বাংলাদেশ]], ঠাকুরদা আর ঠাকুমার কাছে। কবির ঠাকুরদা কর্মজীবন কাটিয়েছেন কলকাতায়। কর্মজীবন শেষে ৫০ বছর বয়সে কলকাতার পাট চুকিয়ে বাংলাদেশের ফরিদপুর বাড়ি চান্দ্রা গ্রামে চলে আসেন। তার বাবা কলকাতাতেই ছিলেন। কলকাতার একটা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভাইস প্রিন্সিপাল হিসেবে কাজ করতেন। দুই বছর বয়সে কবির মা বাবার কর্মস্থল কলকাতায় চলে যান। কবি থেকে যান ঠাকুরদার নাম লোকনাথ চক্রবর্তীর কাছে। গ্রামে কাটিয়েছেন মহা স্বাধীনতা—ইচ্ছেমতো দৌড়ঝাঁপ করে। কখনো গাছে উঠছেন; কখনো আপন মনে ঘুরেছে গ্রামের এই প্রাপ্ত থেকে অন্যপ্রাপ্তে। চার বছর বয়সে কবির কাকিমা বলছিলেন, ‌'তুই তো দেখছি কবিদের মতোন কথা বলছিস!' সেই সময়েই মুখস্থ করেছিল গ্রামে কবিয়ালরা, কবিগান,রামায়ণ গান। গ্রামের দিনগুলো খুব সুন্দর কেটেছেন তাই তিনি এ গ্রামের বাড়ি ছেড়ে কলকাতায় যেতে চাইতেন না। তবে ঠাকুরদার মৃত্যুর পর গ্রাম ছেড়ে কলকাতায় চলে যান। এখন তিনি কলকাতায় থাকেন।

লেখকের ইউআরএলঃ
অবস্থান: ভারত
প্রোফাইলঃ ৭৫ views হয়েছে ।

নীরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তী, মন্তব্য সংখ্যাঃ ০

নীরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তী, পোষ্ট সংখ্যাঃ ২২

যুক্ত হয়েছেনঃ মে ১৪, ২০১২, সোমবার,

নীরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তী 'র পছন্দের পোষ্টঃ
  • "এখনো কোন পছন্দের পোষ্ট যুক্ত করেন নাই ।"

  • তার চেয়ে

    সংযুক্তির তারিখঃ ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৬ লিখেছেনঃ নীরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তী

    সকলকে জ্বালিয়ে কোনো লাভ নেই। তার চেয়ে বরং আজন্ম যেমন জ্বলছ ধিকিধিকি, একা দিনরাত্রি তেমনি করে জ্বলতে থাকো, জ্বলতে-জ্বলতে ক্ষয়ে যেতে থাকো, দিনরাত্রি অর্থাৎ মুখের কশ বেয়ে যতদিন রক্ত না গড়ায়। একদিন মুখের কশ বেয়ে রক্ত ঠিক গড়িয়ে পড়বে। ততদিন তুমি কী করবে? পালিয়ে-পালিয়ে ফিরবে নাকি? পালিয়ে-পালিয়ে কোনো লাভ নেই। তার চেয়ে বরং আজন্ম যেমন […] বিস্তারিত

    ট্যাগসমুহঃ

    তার চেয়ে তে মন্তব্য বন্ধ

    অল্প-একটু আকাশ

    সংযুক্তির তারিখঃ ১৫ জুন ২০১৬ লিখেছেনঃ নীরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তী

    অতঃপর সে বারান্দায় গিয়ে দাঁড়াল। জুঁইয়ের গন্ধে বাতাস যেখানে মন্থর হয়ে আছে ; এবং, রেলিংয়ে ভর দিয়ে যেখান থেকে অল্প-একটু আকাশ দেখা যায়। আকাশ! এতক্ষণে তার মনে পড়ল, সারাটা সকাল, সারাটা বিকেল আর সন্ধ্যা কাজের পাথরে মাথা ঠুকতে ঠুকতে, মাথা ঠুকতে ঠুকতে মাথা ঠোকাই তার সার হয়েছে। কোনো-কিছুই সে শুনতে পায়নি ; না একটা গান, […] বিস্তারিত

    ট্যাগসমুহঃ

    অল্প-একটু আকাশ তে মন্তব্য বন্ধ

    প্রিয়তমাসু

    সংযুক্তির তারিখঃ ১৫ জুন ২০১৬ লিখেছেনঃ নীরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তী

    তুমি বলেছিলে ক্ষমা নেই, ক্ষমা নেই। অথচ ক্ষমাই আছে। প্রসন্ন হাতে কে ঢালে জীবন শীতের শীর্ণ গাছে। অন্তরে তার কোনো ক্ষোভ জমা নেই। তুমি বলেছিলে, তমিস্রা জয়ী হবে। তমিস্রা জয়ী হলো না। দিনের দেবতা ছিন্ন করেছে অমারাত্রির ছলনা; ভরেছে হৃদয় শিশিরের সৌরভে। তুমি বলেছিলে, বিচ্ছেদই শেষ কথা। শেষ কথা কেউ জানে? কথা যে ছড়িয়ে আছে […] বিস্তারিত

    ট্যাগসমুহঃ

    প্রিয়তমাসু তে মন্তব্য বন্ধ

    চিরমায়া

    সংযুক্তির তারিখঃ ১৬ মে ২০১৬ লিখেছেনঃ নীরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তী

    ঘর দুয়ার বাহিরে দেখি না, শুধু স্থির জানি ভিতরে কোথাও চৌকাঠে পা রেখে তুমি দাঁড়িয়ে রয়েছ, চিরমায়া। দাঁতে-চাপা অধরে কৌতুক স্থির বিদ্যুতের মতো লগ্ন হয়ে আছে, ভুরু বিদ্রুপের ভঙ্গিতে বাঁকানো, জ্বলে কোমল আগুন সিঁথি ও ললাটে। স্থির সরসীর মতো দুই চোখে চক্ষু রেখে জগৎ-সংসার অকস্মাৎ তার কার্যকারণের-সূত্রে গাঁথা মাল্যখানিকে ঘোরাতে ভুলে যায়। বাহিরে দেখি না, […] বিস্তারিত

    ট্যাগসমুহঃ

    চিরমায়া তে মন্তব্য বন্ধ

    নিশির ডাক

    সংযুক্তির তারিখঃ ২৪ মার্চ ২০১৬ লিখেছেনঃ নীরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তী

    নিশির ডাক শুনে মাঝরাত্তিরে যারা ঘর ছেড়ে বেরিয়ে গিয়েছিল, এখন আবার খুব শান্ত আর খুব সুন্দর এই সকালবেলায় একে-একে সেই ছেলেগুলো যে যার ঘরে ফিরে আসছে। ওদের ছেঁড়া জামাকাপড়, ওদের রক্তাক্ত হাত-পা, আর সেইসঙ্গে ওদের ভাষাহীন চাউনি দেখেই বোঝা যায় যে, যা পাবে বলে ওরা রাস্তায় গিয়ে নেমেছিল, তা ওরা পায়নি। মাথা নিচু করে ওরা […] বিস্তারিত

    ট্যাগসমুহঃ

    নিশির ডাক তে মন্তব্য বন্ধ

    আমার ভিতরে কোনো দল নেই

    সংযুক্তির তারিখঃ ০৫ মার্চ ২০১৬ লিখেছেনঃ নীরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তী

    আমার পিছনে কোনো দল নেই, আমার ভিতরে দলবদ্ধ হবার আকাঙ্ক্ষা নেই, আমি সাদা কালো লাল নীল গাং-গেরুউয়া জাফরান বাদামি হরের রঙের খেলা দেখে যাই। একলা-পথে হাঁটতে-হাঁটতে একলা আমি ঘরে ফিরে যাব। যেতে-যেতে ধুলোবালি জঞ্জালে ও ঘাসে খানিকটা প্রশংসা আমি রেখে যাই। দেখি শুকনো পাতা উড়ছে হিলিবিলি সন্ধ্যার বাতাসে। আমার পিছনে কেউ নেই এখানে। কস্মিনকালেও কাউকে […] বিস্তারিত

    ট্যাগসমুহঃ

    আমার ভিতরে কোনো দল নেই তে মন্তব্য বন্ধ

    ফেউ

    সংযুক্তির তারিখঃ ১১ সেপ্টেম্বর ২০১৫ লিখেছেনঃ নীরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তী

    সন্ধ্যারাতে চতুর্দিকে চেঁচিয়ে মরে ফেউ। মরুক। তোর কাজে বিঘœ কেন ঘটবে, তোর হাতের কলম কেউ কাড়তে পারবে না যে। দৃশ্য বটে পালটে যায়, রাত্রি হয় ঘোর। তখনও ফেউ ডাকে। ডাকুক, ডেকে মরুক। তাতে ভাবনা নেই, তোর কলম যদি থাকে। ঘরের মধ্যে একলা তুই, বাহিরে ঘুরে যায় আতঙ্কের ঢেউ; এদিকে দেখি টেবিলে আলো। ওদিকে শুনি ঠায় […] বিস্তারিত

    ট্যাগসমুহঃ

    ফেউ তে মন্তব্য বন্ধ

    ওর কথাটা বোঝো

    সংযুক্তির তারিখঃ ২১ নভেম্বর ২০১৪ লিখেছেনঃ নীরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তী

    তোমার যা বলবার কথা, তুমি পুরো একটা ঘন্টা ধরে সব্বাইকে বুঝিয়ে বলেছ। এই বার ওই যে লোকটা একদম পিছনে ঠায় দাঁড়িয়ে আছে, মঞ্চ থেকে নেমে তুমি একবার ওর কাছে চলে যাও, ওর কথাটা বোঝো। ওর বাড়ি—যদ্দুর জানি—ডায়মন্ড হারবারে। কিংবা কালনা কিংবা কাটোয়ায়। কিংবা অন্য যে-কোনো জায়গায় হোক, ওকে দেখলে বোঝা যায় ওর পেটে দাউদাউ জ্বলছে […] বিস্তারিত

    ট্যাগসমুহঃ

    ওর কথাটা বোঝো তে মন্তব্য বন্ধ

    পুকুরচুরি

    সংযুক্তির তারিখঃ ১৭ অক্টোবর ২০১৪ লিখেছেনঃ নীরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তী

    জলধারা দূরে সরে যায়, দূর থেকে ক্রমে আরও দূরে। শেষ ক’টি পুকুর শুকায়, শহরের বুক যায় পুড়ে। নেমে গেছে পুকুরের জল, ঘটিতে এখন শুধু নুড়ি উঠে আসে, লেঠেলের দল আঁধারে করেছে জল চুরি। কোথায় শুনেছে কে বা কবে লাঠির দাপটে পরপর এভাবে পুকুরচুরি হবে, থাকবে শুধুই বাড়িঘর। যেখানেই আজ চোখ থুই, জল নেই, শুধু সারি-সারি […] বিস্তারিত

    ট্যাগসমুহঃ

    পুকুরচুরি তে মন্তব্য বন্ধ

    মিলিত মৃত্যু

    সংযুক্তির তারিখঃ ২৭ আগস্ট ২০১৩ লিখেছেনঃ নীরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তী

    বরং দ্বিমত হও, আস্থা রাখ দ্বিতীয় বিদ্যায়। বরং বিক্ষত হও প্রশ্নের পাথরে। বরং বুদ্ধির নখে শান দাও, প্রতিবাদ করো। অন্তত আর যাই করো, সমস্ত কথায় অনায়াসে সম্মতি দিও না। কেননা, সমস্ত কথা যারা অনায়াসে মেনে নেয়, তারা আর কিছুই করে না, তারা আত্মবিনাশের পথ পরিস্কার করে। প্রসঙ্গত, শুভেন্দুর কথা বলা যাক। শুভেন্দু এবং সুধা কায়মনোবাক্যে […] বিস্তারিত

    ট্যাগসমুহঃ

    মিলিত মৃত্যু তে মন্তব্য বন্ধ

    ই-মেইলের মাধ্যমে নতুন পোষ্ট-এর জন্য

    আপনার ই-মেইল লিখুন

    ,

    আগস্ট ২০, ২০১৭,রবিবার

    Custom Search
    আপনার বিজ্ঞাপন !

    বাংলা সংবাদপত্র