"কুকুরীর জন্য সংবেদনা", "ফেরার ইচ্ছে" এবং "লবণ প্রার্থনার দিনলিপি"…… কাজী নাসির মামুন এর ৩টি কবিতা……

কুকুরীর জন্য  সংবেদনা

 

আঘাতে আঘাতে মানুষ দস্যু হয়ে যায় ।

চিতই পিঠার মতো জালি জালি কলিজায়

রক্ত ফিনকি দিয়ে উঠে তার ।

বুকের গহীনে অদৃশ্য চুলোয় স্বপ্নরে পুড়ে দেয়

যে স্বৈর দহন,

তারই বিধ্বস্ত পাড়ে পড়ে থাকে

একাকী জ্বলন্ত অঙ্গার মানুষ ।

 

অতঃপর আবুল কালাম

আরেক উদ্বাহু স্বপ্নের কোলে ঘুমাতে চায় ।

ঔরসের রক্তের মতো যে ছিল আপন,

জান্তব পুরুষের টানে ছেড়ে গেছে বহুদিন ।

খান খান হৃদয়ের পাতে অশোধিত ঋণ কিছু রেখে গেছে সে ।

ঐন্দ্রজালিক সময়কে যে  মানে বান্ধব

উতরোল কান্নায় কে ফেরাবে তারে ?

তবুও তো মনিবের আড়ালে গেলে নিরীহ পশু

কর্কশ চিৎকারে মমতার স্বকীয় চিহ্ন রাখে ;

প্রেমের গলিত লালার উপর  অমিয় সৌরভ রেখে

মানুষ মানুষকে ছেড়ে যায় দ্ব্যর্থহীন ।

তবুও আশা থাকে…

বেদনার বিমূর্ত কফিনে লা-ওয়ারিশ কুকুরীর মতো

নির্বেদের আঙিনায় যদি সে ফেরে ।

 

আবুল কালাম !

মানুষের কলিজা নিয়ে ধাপ্পা খেলে যে নিষ্ঠুর,

অন্তহীন অঙ্কের অকূলপাথার নিয়ে

উদ্ধত যৌবনে তারও পড়ন্ত বিকেল নামে ।

প্রেমের বিনয়ী জল হাতে পরিপুর্ণ মাটির বাসন–

অপেক্ষা করে সে ।

প্রাণেড় কুকুরী, আহা, আপন মানুষ

যদি ফিরে আসে…

 

ফেরার ইচ্ছে

 

নদীকে নিজের বাড়ি মনে করো,
তখন ভাবতে হবে না যে তুমিও ভাসছো
স্রোতের সমান ।
যদিও আবাস তার–পৃথিবীর নিরত ঘূর্ণন
বুঝতে পারে না কেউ । তাই তো অটল থাকে
বিবর্ণ বিষাদে
সফল ক্ষমায় ।

দারুণ প্রলম্ব হোক তোমার সময়
দ্রৌপদীর বস্ত্র খুব যেমন লম্বাটে ।
পরত খুলতে গিয়ে তোমার অনেক
হরণের হাত ফিরে ফিরে যাবে ।
তখন
ছলনার দিন-ক্ষণ
তোমার মুঠোয়
কেমন পবিত্র হয়, দেখো ।

অসীম শাড়িতে জলো নাম, প্রেম
যে যত টানতে পারে কাছে
তার তত বিরহ-বিচ্ছেদ
গান গায় বুকের মন্দ্রিত পাখি
চ্ছলাৎ… চ্ছলাৎ…
প্রবাস সুদীর্ঘ হলে স্মৃতি শুধু খাটো হয়ে যায়;
অচল মুদ্রাও তুলে রাখে কেউ ইতিহাস
মূল্য দেবে বলে ।
তুমিও তেমন মুখ । কবির মনের মধ্যে বিভূঁইবিলাস ।
জলের সতীত্বে ভেসে গেলে
নদীকে বাড়ির মতো স্বচ্ছ রেখো ।
আসবো নাগর এই দুধভাত । থালায় গন্তব্য রেখে
অগ্রিম বীণার তারে সুর দেবো কেন ?
ঝড়ে বক মরে । হৃদয় মরে না ।

সম্পর্কিত পোষ্ট =>  সময় (কবি - নিলয়)

 

লবণ প্রার্থনার দিনলিপি

 

বাগান সংগুপ্ত রেখে
তুমি কেন পাথর ভালোবাসো ?
দেয়ালে শ্যাওলা জমে
কাঠামো গুঁড়িয়ে দিলে ধুলো জমে
প্রত্ন-প্রবেশিকায়
অতীত মোহিত করে তুমি কেন
পিছনে হাঁটো ?

তালগাছ নীরবে বাড়ে । ঝড়েও লুটিয়ে পড়ে না ।
তোমাকে পাহাড় দিলাম । মৌনতায় উঠে আসো ।

পুলক ছড়িয়ে দিলে
সঙ্গে কিছু বিষাদের দায় থেকে যায়
ঢেউয়ে ঢেউয়ে জীবন মিলিয়ে দেখো
সমুদ্র কখনো লিখবে না লবণ প্রার্থনার দিনলিপি ।
বিষাদ তাড়িত হলে তুমি কেন আকাঙ্ক্ষা মাড়াও ?
অপূরণের দাবানলে
মানুষ কেবলি ছাই হতে চায়, সোনা নয় ।
হৃদয়ে আকাশ গুঁজে রাখো
মেঘে মেঘে স্বপ্ন খুঁজে পাবে ।

মৃত্যুকে প্রেমের জন্য উপাত্ত ভেবো না
তোমাকে শোনাবো লুপ্ত পাথরের গান
 

 

মন্তব্য

মন্তব্য সমুহ

কাজী নাসির মামুন- এর আরো পোষ্ট দেখুন →
রেটিং করুনঃ
1 Star2 Stars3 Stars4 Stars5 Stars (No Ratings Yet)
Loading...

One thought on “"কুকুরীর জন্য সংবেদনা", "ফেরার ইচ্ছে" এবং "লবণ প্রার্থনার দিনলিপি"…… কাজী নাসির মামুন এর ৩টি কবিতা……”

  1. “তবুও তো মনিবের আড়ালে গেলে নিরীহ পশু

    কর্কশ চিৎকারে মমতার স্বকীয় চিহ্ন রাখে ;

    প্রেমের গলিত লালার উপর অমিয় সৌরভ রেখে

    মানুষ মানুষকে ছেড়ে যায় দ্ব্যর্থহীন ।”……..KOBITAGULU VALO LEGECHE.

Comments are closed.