এলেবেলে-৩০

গুলশানের ঘটনা জাপানের সংবাদ মাধ্যমে প্রধান শিরোনাম হিসাবে প্রচার করছে । জাপানের একজন মন্ত্রী ইতিমধ্যে বাংলাদেশে পৌছেছেন । জাপান সময় সন্ধ্যা ৬ টায় জাইকার সংবাদ সন্মেলন । জাপানের প্রধানমন্ত্রী আজকের পুর্বনির্ধারিত নির্বাচনী প্রচারনার কর্মসুচী বাতিল করে টোকিওতে অবস্থান করছেন ।
জাপানে প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী আটজন জাপানী নাগরিক ঘটনার সময় রেস্তোরাটিতে ছিলেন । একজন কে জীবিত উদ্বার করা গেলে বাকী ৫ জন পুরুষও ২ জন মহিলার সম্পর্কে কোন তথ্য পাওয়া যায় নি ।
নিহত ২০ জনের মধ্যে সর্বাধিক জাপানী নাগরিক এর পরে রয়েছেন ইতালীয় নাগরিক । এর আগে আজ সকালেই জাপানের কেবিনেট সচিব জিন্মি ঘটনা সাংবাদিকদের কাছে তুলে ধরেন ।উল্লেখ্য বাংলাদেশে ২৪০ টির মতো জাপানী প্রতিষ্টান এবং হাজার খানেক জাপানী নাগরিক বাংলাদেশে অবস্থান করছে ।
গুলশান ঘটনার পুর্বে জাপানীদের একটা বিশ্বাস ছিলো অন্তত বাংলাদেশে কোন জাপানীর উপর আঘাত আসবে না । সেই বিশ্বাস ভেংগে গেছে ।
(আমার খুব কাছের একজন মানুষ একসময় বাংলাদেশে জাইকাতে কর্মরত ছিলেন )তাঁদের সেই বিশ্বাস আমরা ফিরাতে পারবো বলে মনে হয় না ।
যে সাত জন জাপানী বাংলাদেশে গিয়েছিলেন ওনারা ব্যবসায়ী ছিলেন না । আমাদের দেশের অবকাঠামো উন্নয়নে নিজের জীবন দিয়ে গেলেন । আমাদের দেশের মতো জাতীয় শোক ঘোষনা করা হয়নি । চায়ের কাঁপে ঝড় ও উঠে না ।২০ বছর আগে পেরুর জাপান দুতাবাসের জিন্মি ঘটনাতেও তাই দেখেছি । জাতি হিসাবে এরা বক্তৃতাবাজ বা তার্কিক ও নন ।
চীনের শ্রম মুল্য বৃদ্বি সহ আরো অনেক কারনে বাংলাদেশ হয়ে উঠেছিলো সম্ভাব্য বিনিয়োগের লক্ষ্য স্থল ।সেই সম্ভাবনা ক্ষীন হয়ে গেল ।
সরকার স্বীকার করুক আর নাই করুক বাংলাদেশে বর্তমানে বাস্তবায়ধীন জাপানী প্রকল্প গুলোতে স্তবিরতা আসবে।বাংলাদেশে কর্মরত জাপানী নাগরিকের নিরাপত্তার বিষয়টা জাপান অগ্রাধিকার দেবে । এর আগে হোসি কুনিও হত্যাকান্ডের পর জাপানী স্বেচ্চাসেবক দেরকে দেশে ফিরিয়ে এনেছিল জাপান ।
July 2, 2016

সম্পর্কিত পোষ্ট =>  একুশের কবি

মন্তব্য

মন্তব্য সমুহ

মিতা- এর আরো পোষ্ট দেখুন →
রেটিং করুনঃ
1 Star2 Stars3 Stars4 Stars5 Stars (No Ratings Yet)
Loading...