এলেবেলে-৭

দুই দিন আগে আমার এক বন্ধু আমার কাছে ৫ টি বইয়ের নাম জানতে চেয়েছিলেন ” যে বই পড়ে আমার মনে হয়েছে অন্যেরও পড়া উচিত “।
আমি খুব ভাবনায় পড়ে গেলাম । আমি সব ধরনের বই পড়ি, পড়তে ভালোবাসি ।
পাঠ্য থেকে অপাঠ্য সব বই- ই । স্কুল জীবনে পাঠ্য বইয়ের ভিতরে লুকিয়ে অপাঠ্য বই পড়েছি । রোমেনা আফাজের “দস্যু বনহুর” । কাজী আনোয়ার হোসেন এর “মাসুদ রানা ” ।
ইমদাদুল হক মিলন ,মঈনুল আহসান সাবের,হাসনাত আব্দুল হাই , সমরেশ বসু ,সমরেশ মজুমদার, সুনীল গঙ্গোপধ্যায় ,আবুল বাসার, বুদ্বদেব গুহ …।
পড়েই চলেছি …।
সমরেশ মজুমদারের “বাঙ্গালীর নষ্টামী ” নামের বই এ কয়েকটি বইয়ের নাম উল্লেখ আছে , উনার মতে এই বই গুলোই বাংলা সাহিত্যের শ্রেষ্ট লিখা ।
সুতরাং আপনার সন্তানকে পড়তে বলুন ।পাঠ্য থেকে অপাঠ্য সব । পাঠ্য – এর চেয়ে অপাঠ্যই কাজে লাগে বেশী, মনেও ধরে ।
পাঠ্য আর অপাঠ্য এটা কি ভাবে নির্ধারিত হয়।আমার পরিচিত কিছু মানুষ আছেন তাঁরা যখন অপাঠ্য বইপড়তে শুরু করেন তখন উনাদের কাছে সব লিখাই অসাধারন মনে হয় । উনাদের এই অনুভুতি খুব ভালো লাগে …
আবার এমন কাউকে দেখেছি যিনি পড়তে ভালো বাসেন না কারন তিনি মনে করেন ” অনেক পড়ার সমস্যা হচ্ছে আমার আগে একথা কেউ লিখে ফেলেছে” । খুব মজার তাই না ।
অপাঠ্য বলে কোন বই আছে কিনা জানি না ।

মন্তব্য

মন্তব্য সমুহ

সম্পর্কিত পোষ্ট =>  শুভেচ্ছা জেনো
মিতা- এর আরো পোষ্ট দেখুন →
রেটিং করুনঃ
1 Star2 Stars3 Stars4 Stars5 Stars (No Ratings Yet)
Loading...